কমলগঞ্জমুক্ত দিবস আজ

একাত্তর ডেস্ক :: আজ ৫ ডিসেম্বর কমলগঞ্জ উপজেলা মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে মৌলভীবাজারের সীমান্তবর্তী কমলগঞ্জ উপজেলা হানাদারমুক্ত হয়। মুক্তিযোদ্ধা ও মিত্র বাহিনীর সাড়াঁশি অভিযানের মুখে বিপর্যস্ত হয়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী কমলগঞ্জে দখলদারিত্ব ছেড়ে পালিয়ে যায়। এই দিনে কমলগঞ্জের মুক্তিপাগল বাঙালি উড়িয়ে দেয় স্বাধীনতার পতাকা।
দিবসটি নিয়ে কিছুটা বিতর্ক থাকলেও স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ৫ ডিসেম্বরই কমলগঞ্জ হানাদারমুক্ত হয়। পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে কমলগঞ্জে সর্ব দলীয় সংগ্রাম পরিষদ অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। মুক্তিযুদ্ধের প্রতি অনুগত ৬০ জনের একটি দল তৈরি করে উপজেলার শমশেরনগর বিমান ঘাঁটিতে ট্রেনিংয়ের কাজ চলতে থাকে। ১০ মার্চ ক্যাপ্টেন গোলাম রসুলের নেতৃত্বে এক দল পাক সেনা মৌলভীবাজারে অবস্থান নেয়। ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসে তৎকালিন ছাত্রনেতা নারায়ণ পাল ও আব্দুর রহিম পাকিস্তানি পতাকা পুড়ানোর দায়ে গ্রেপ্তার হন। পরে জনতার তীব্র আন্দোলনের মুখে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। কমলগঞ্জ উপজেলা ছিল বামপন্থিদের সুদৃঢ় ঘাঁটি। তারা মৌলানা ভাসানি ও হক তোহায়া গ্রুপের সাথে সংশ্লিষ্ট ছিলেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের সুচনা লগ্নে নকশাল পন্থিদের নির্মূল করার অজুহাতে মেজর খালেদ মোশারফকে কমলগঞ্জে পাঠানো হয়। তিনি ছিলেন বাঙ্গালী সেনা কর্মকর্তা। ২৫ মার্চ গণহত্যা শুরু হলে তিনি পাক বাহিনীর সাথে সকল সম্পর্ক ছিন্ন করে জনতার কাতারে সামিল হন।
একাধারে ৯ মাস ব্যাপী চলমান এই মুক্তিযুদ্ধে কমলগঞ্জের মুক্তিযোদ্ধারা যে সাহসী ভূমিকা রেখেছেন তা এ এলাকার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। মুক্তিযোদ্ধারা কমলগঞ্জের মাটিতে স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করে ৫ ডিসেম্বর গোটা কমলগঞ্জ উপজেলা কমলগঞ্জ হানাদার মুক্ত হয়।