৬ মাসের মধ্যে মত বদলাবে না ট্রাম্পের

হেলাল উদ্দীন রানা :: প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অনেকটা আফসোসের সুরেই বলেন, কোর্ট তার মামলা নিতে অনীহা দেখাচ্ছে। ট্রাম্প প্রশ্ন রেখে বলেন এ কেমন কোর্ট? নির্বাচনে পরাজয় বরণের পর রোববার প্রথম ফক্স নিউজের সাথে ট্রাম্প সাক্ষাৎকার দেন। টেলিফোনের মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট ফক্স নিউজকে এই সাক্ষাৎকার প্রদান করেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, আগামী ৬ মাসের মধ্যে তার মতের কোনো রকমের পরিবর্তন হবে না। ফক্স নিউজের উপস্থাপক মারিয়া বার্টিরমোর প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প এসব কথা বলেন। এখনও তিনি নির্বাচনে হার মেনে নিতে অস্বীকার করছেন।
ট্রাম্প অনুষ্ঠানের উপস্থাপককে উদ্দেশ্য করে বলেন, চিন্তা করেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে তারা আমার চমৎকার মামলাগুলো গ্রহণ না করে ছুঁড়ে ফেলছেন। তারা বলেছেন এসব মামলার কোন গ্রহণ যোগ্যতাই নেই। এটা কী করে সম্ভব। এটা কেমন আদালত? প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অকপটে স্বীকার করেন তার মামলাগুলো ইউএস সুপ্রিম কোর্টে নিয়ে যাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। তবে তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্টে লড়াই করার মতো ভালো ও অভিক্ষ আইনজীবী তার কাছে রয়েছেন। যারা কোর্টে ভালোভাবে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করতে পারেন।
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, অনেক বিশ্ব নেতৃবৃন্দ নির্বাচনী এ লড়াইয়ে তার দাবির প্রতি সমর্থন জ্ঞাপন করেছেন। তবে এ ব্যাপারে তিনি কারো নামোল্লেখ করেননি। কিন্তু প্রকৃত সত্য হচ্ছে বিশ্বের প্রায় সকল দেশের নেতৃবৃন্দ বাইডেনকে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মেনে নিয়ে ইতিমধ্যে অভিনন্দন জানিয়েছেন। শুধুমাত্র রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এখনও বাইডেনকে অভিনন্দন জানাননি। এর আগে এক টুইটে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দাবি করেন বহু জাল ও অবৈধ ভোটের তিনি সন্ধান পেয়েছেন। যদিও এখন পর্যন্ত জালিয়াতির কোনো রকমের প্রমাণ তিনি বা তার আইনজীবীগণ কোনো আদালতে হাজির করতে পারেননি। উসকনসিনের পুনর্গণনায় ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের ভোট বেড়ে যাওয়া ঢাকতে তিনি বলেন তার ক্যাম্পেইন গণনার ভুল খুঁজে বের করতে নয় ভোটের জালিয়াতি ও বেআইনি ভোট খুঁজে পেতে এই পুনর্গণনা করেছে।
উল্লেখ্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ৩ মিলিয়ন ডলার খরচ করে উইসকনসিনের মাত্র দুটি কাউন্টির ভোট পুনর্গণনা করান। পুনর্গণনায় উল্টো বাইডেনের ভোট বেড়ে গেছে। এদিকে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নতুন করে বিচার বিভাগ ও এফবিআইকে ভোট জালিয়াতির ষড়যন্ত্রে শরিক বলে অভিযুক্ত করেছেন। নিউজ উইক এ ব্যাপারে এজেন্সিগুলোর সাথে যোগাযোগ করলেও তারা সাথে সাথে এর কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি। অন্যদিকে, প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত জো বাইডেনের পা মচকে গেছে। শনিবার তার জার্মান শেফার্ড কুকুর মেজরের সাথে খেলতে গিয়ে তিনি পায়ে মোচড় খান। ডাক্তার পরীক্ষার পর বলেছেন তার পায়ের পাতার মাঝের হাড্ডিতে (হেয়ার লাইন) খুবই ছোট আকারের ফ্র্যাকচার পাওয়া গেছে। বাইডেনকে আগামী কয়েক সপ্তাহ বিশেষ ধরণের মেডিকেল জুতা (ওয়াকিং বুট) ব্যবহার করতে হবে। বাইডেন গত ২০ নভেম্বর তার ৭৮তম জন্মদিন পালন করে ৭৯-তে পা দিয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে তিনি হচ্ছেন সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট। নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার প্রশাসন গোছানোর কাজ নিয়ে ব্যাস্ত সময় পার করছেন। তিনি তার দল ও সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য প্রার্থী বাছাইয়ের কাজে মনোযোগ দিয়েছেন। তার মন্ত্রী সভায় প্রাধান্য পাচ্ছেন নারীরা।