বিভিন্ন স্থানে স্বাস্থ্য সহকারীদের কর্মবিরতি : ‘দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে’

একাত্তর ডেস্ক :: বেতন বৈষম্য নিরসন ও গ্রেড উন্নয়নের দাবিতে সিলেটের বিভিন্ন স্থানে লাগাতার কর্মবিরতি পালন করছেন স্বাস্থ্য সহকারীরা। আন্দোলনের অংশ হিসেবে তারা বৃহস্পতিবারও র‌্যালি, সমাবেশ ও মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন। সমাবেশ ও মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, স্বাস্থ্য সহকারীদের সাথে বেতন গ্রেডের উন্নয়ন করতে হবে, দূর করতে হবে বেতন বৈষম্য। এ দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন কার্যক্রম চলবে। প্রয়োজনে আরো বৃহৎ কর্মসূচি দেওয়া হবে।

কোম্পানীগঞ্জ

আমাদের কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, বেতন বৈষম্য নিরসন ও গ্রেড উন্নয়নের দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে লাগাতার কর্মবিরতি পালন করছেন সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার স্বাস্থ্য সহকারীরা। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বাইরে তারা অবস্থান করে কর্মবিরতি পালন করেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন দাবি বাস্তবায়ন পরিষদের আহবায়ক মো. আব্দুল হাছিব, যুগ্ম আহবায়ক মো. আব্দুল মতিন ও মো. আমিনুর রহমান, সদস্য সচিব মো. দুলাল আহমদ, সদস্য পারভীন বেগম, সুনীল ভীম সভ্র, বুরহান উদ্দিন, সরস্বতী মন্ডল, রাশিদা আক্তার, রীনা রানী শর্ম্মা ও শিবানী চক্রবর্তী প্রমুখ।

তারা জানান, তৃণমূলে স্বাস্থ্য সহকারীদের অর্জনেই বাংলাদেশ আজ টিকাদানে রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। সরকার প্রধান পেয়েছেন ৭টি পুরস্কার। স¤প্রতি আন্তর্জাতিক সংস্থা গেøাবাল অ্যালায়েন্স ফর ভেকসিনেশন এন্ড ইমুনাইজেশন বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভ্যাকসিন হিরো উপাধিতে ভূষিত করে। আর এই সম্মান অর্জনের কারিগর স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীরা। অথচ তারাই আজ বেতন বৈষম্যের শিকার। দাবি আদায় না হলে এ আন্দোলন অনির্দিষ্টকাল চলবে।

বড়লেখা

আমাদের বড়লেখা প্রতিনিধি জানান, বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে বড়লেখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহ-স্বাস্থ্য পরিদর্শক এবং স্বাস্থ্য সহকারীরা কর্মবিরতি পালন করেছেন। বৃহস্পতিবার সকালে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রাঙ্গণে কর্মবিরতিতে থাকা স্বাস্থ্য সহকারীদের সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দাবি বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক কামরুজ্জামান খান, এসোসিয়েশনের সভাপতি মাসুক আহমদ, সম্পাদক বিকাশ দাস, আলম হুসাইন, আব্দুস সামাদ, রাজেশ দেবনাথ, দিপংকর দাস ও মামুনুর রশিদ।
সমাবেশে বক্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৮ সালের ৬ ডিসেম্বর স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহ স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীদের এক মহাসমাবেশ বেতন বৈষম্য নিরসনের ঘোষণা দিয়েছিলেন। ২০১৮ সালের ২ জানুয়ারি তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রী দাবি মেনে নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য একটি কমিটি গঠন করে দেন। এছাড়া চলতি বছরের ২০ ফেব্রæয়ারি আমরা হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইন বর্জন করলে বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্য সচিব ও মহা-পরিচালক আমাদের দাবিসমূহ মেনে নিয়ে লিখিত সমঝোতাপত্রে স্বাক্ষর করেন। দাবি সমূহ হচ্ছে স্বাস্থ্য পরিদর্শক ১১তম গ্রেড, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ১২তম গ্রেড ও স্বাস্থ্য সহকারী ১৩তম গ্রেডে উন্নতিকরণ। বক্তারা বলেন, ৫ ডিসেম্বর শুরু হতে যাওয়া হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইন কার্যক্রম থেকে ও বিরত থাকবো। দাবি পূরনের প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি অব্যাহত থাকবে।

মাধবপুর

আমাদের মাধবপুর প্রতিনিধি জানান, বেতন বৈষম্য নিরসনসহ বিভিন্ন দাবিতে হবিগঞ্জের মাধবপুরে কর্মবিরতি পালন করেছেন স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীরা। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হেলথ্ এসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশনের উদ্যোগে কর্মবিরতি পালন করা হয়।

পরে সংক্ষিপ্ত সভায় বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য সহকারী আব্দুল আহাদ, সহ স্বাস্থ্য পরিদর্শক তাজুল ইসলাম, হুমায়ুন কবির, জিয়াউর রহমান সুজন, টিপু সুলতান চৌধুরী ও আসিফ আহামেদ।
বক্তারা বলেন, নিয়োগবিধি সংশোধনসহ ক্রমানুসারে স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীদের বেতন গ্রেড ১৬তম থেকে যথাক্রমে ১১, ১২, ১৩তম গ্রেডে উন্নীত করতে হবে।

কমলগঞ্জ

আমাদের কমলগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে স্বাস্থ্যকর্মীদের অনিদিষ্টকালের ধর্মঘটের প্রথম দিন উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের ১৫টি ইপিআই কেন্দ্রে টিকাদানসহ সকল কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এতে নারী ও শিশুরা স্বাস্থ্যসেবা বঞ্চিত রয়েছেন। বৃহস্পতিবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে সকাল ১১টা হতে বিকাল ৩টা পর্যন্ত স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীরা কর্মবিরতি পালন করেন।

বাংলাদেশ হেল্থ এসিসট্যান্ট এসোসিয়েশন কমলগঞ্জ শাখা আয়োজিত কর্মবিরতি কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন হেল্থ এসিসট্যান্ট এসোসিয়েশন কমলগঞ্জ শাখার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আনজুমান আরা রুবি, সম্পাদক অনিরুদ্ধ প্রসাদ রায়, উপজেলা সদস্য আবুল হোসেন, আহমদ আলী ও তোফায়েল আহমদ।

বক্তারা নিয়োগবিধি সংশোধনসহ ক্রমানুসারে স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীদের বেতন গ্রেড ১৬তম থেকে ১১, ১২ ও ১৩ তম গ্রেডে উন্নীতকরণের দাবি জানান।

কুলাউড়া

আমাদের কুলাউড়া প্রতিনিধি জানান, কুলাউড়া উপজেলায় কর্মরত হেলথ অ্যাসিটেন্টরা বৃহস্পতিবার কর্মবিরতি পালন করেছেন। বেতন বৈষম্য নিরসনসহ বিভিন্ন দাবিতে তারা কর্মবিরতি পালন করেন।

কর্মবিরতি পালনকালে বক্তব্য দেন দাবি বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক মো. আব্দুল আউয়াল, যুগ্ম আহবায়ক মো. হাবিবুর রহমান, মো. নাজমুল হক মুকুল ও মো, লুৎফুর রহমান, সদস্য সৈয়দা আলেয়া বেগম, সিরাজ মিয়া, আছমা বেগম, প্রদীপ কুমার সিংহ, কোকিল মালাকার, পারভেজ আহমদ, আব্দুর রব, জিসান তারেক, অভিনাশ দাস, জাহাঙ্গীর আলম, নুপুর ধর, রবিউল করিম ও জাকিরুল ইসলাম।

বক্তারা বলেন, ১৯৯৮ সালের ৬ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা, ২০১৮ সালে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রæতি এবং ২০ ফেব্রæয়ারি বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবের লিখিত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে হবে। দাবি মেনে নেওয়া না হলে অনির্দিষ্টকাল পর্যন্ত কর্মবিরতি চলবে।

লাখাই

আমাদের লাখাই প্রতিনিধি জানান, স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীদের গ্রেড উন্নয়ন করে নিয়োগ বিধি সংশোধনসহ বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে লাখাই উপজেলার স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীরা কর্মবিরতি পালন করছেন। বৃহস্পতিবার কর্মবিরতি পালনকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক স্বপন কুমার সরকারের সভাপতিত্বে ও স্বাস্থ্য সহকারী নজরুল ইসলামের পরিচালনায় আলোচনায় সভায় বক্তব্য রাখেন রতন চন্দ্র রায়, মো. কামাল হোসেন, নকুল কুমার গোস্বামী, লুৎফর রহমান, কামাল হোসেন, মো. আল আমিন ও সতেন্দ্র দেব। সভায় বক্তারা বলেন, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি চলবে।