তামিলনাড়ুতে ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে মৃত ৩

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক :: বুধবার ভারতের তামিলনাড়ুতে আঘাত এনেছিলো ঘূর্ণিঝড় নির্ভার। আপাতত লণ্ডভণ্ড করে দিয়ে শান্ত হয়েছে কিছুটা। রাজ্যের অতিরিক্ত মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ৩ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। আহত হয়েছেন আরও ৩ জন।

উপকূলে আছড়ে পড়ার পর থেকে ভয়ঙ্কর তাণ্ডব না চালালেও পুদুচেরি ও তামিলনাড়ুর উপকূল এলাকার জনজীবন বিপর্যস্ত। উপড়ে পড়েছে বহু গাছ। বৃষ্টিতে জলমগ্ন পুদুচেরি-তামিলনাড়ুর বহু এলাকা। চলছে ক্ষয়ক্ষতির হিসেব কষার কাজ। সব রকম সাহায্যের আশ্বাস দিয়েছে কেন্দ্র।

বুধবার রাত ১১টার ভারতের তামিলনাড়ুর মারাক্কানম ও পুদুচেরির মধ্যবর্তী অঞ্চলে আছড়ে পড়ার আগে থেকেই শুরু হয়েছিল ভারী বৃষ্টি। আছড়ে পড়ার পর বর্ষণের মাত্রা আরও বাড়ে। সঙ্গে প্রবল ঝড়। নিভারের তাণ্ডবে কার্যত লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছে দুই রাজ্যের উপকূল এলাকা। বহু বাড়িঘর ভেঙে পড়েছে বলে প্রশাসনিক সূত্রে খবর মিললেও সঠিক সংখ্যা কত, তার হিসেব প্রকৃত হিসেব এখনও প্রশাসনের কাছে নেই। ঝড়ের তাণ্ডবে ভেঙে পড়েছে বহু গাছপালা। কার্যত জনশূন্য রাস্তাঘাট। শুধুমাত্র পুদুচেরিতেই বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত ২০ ঘণ্টায় ২০ সেন্টিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।

রাজ্যের কয়েক লাখ মানুষকে উপকূলবর্তী এলাকা থেকে সরিয়ে নিয়েছিলো তামিলনাড়ু সরকার। অন্যদিকে তামিলনাড়ুর বাস বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যারা যুক্ত তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে পুদুচেরিতে। এ সময়ে সব দোকান বন্ধ থাকবে। তবে পেট্রোল পাম্প, দুধের দোকান খোলার অনুমতি দেয়া হয়েছে। বাতিল করা হয়েছে বিমানের ৪৯টি ফ্লাইট। সতর্কতা হিসেবে তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী কে পালানিস্বামী বৃহস্পতিবার ১৩টি জেলায় সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছেন।

শনিবার পর্যন্ত সব স্কুল বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়। এছাড়াও পুদুচেরিতেও সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছেন। এর আগে বুধবার আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছিলো, প্রায় তিন ঘণ্টায় এর কেন্দ্র পুদুচেরি অতিক্রম করে যাবে। সে সময় বাতাসের গতিবেগ সর্বোচ্চ ১৪৫ কিলোমিটার হতে পারে বলে সতর্ক করা হয়েছে।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় তামিলনাড়ু উপকূলে রণতরী আইএনএস জ্যোতি মোতায়েন করেছিলো নৌবাহিনী। রাজ্যের বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের মন্ত্রী আর বি উদয়কুমার জানিয়েছেন, বেশিরভাগ মানুষকে চেন্নাইয়ের দক্ষিণের নাগাপট্টিনম ও কাড্ডালোর জেলা থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। চেন্নাইয়ের অধিকাংশ বড় সড়ক বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এবং রাজ্যে ইতোমধ্যেই ১৫০টি ত্রাণ শিবিরকে তৈরি রাখা হয়েছে।

সূত্র: আনন্দবাজার।