পা হারানো স্কুলছাত্রী নদীকে মানবিক সহায়তা

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :: হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় বিদ্যুৎপৃষ্টে দুই পা হারানো ৩য় শ্রেণির ছাত্রী তাজরিন আক্তার নদীকে ৫ লাখ টাকার মানবিক সহায়তা করেছে লন্ডনভিত্তিক সংগঠন প্রাউড টু বি সিলেটি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট। এ উপলক্ষে বুধবার দুপুরে শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে স্কুল ছাত্রী নদীর হাতে ৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র তুলে দেন সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির।

উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান গাজিউর রহমান এমরানের পরিচানায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রাউড টু বি সিলেটি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট’র হবিগঞ্জ প্রতিনিধি তোফাজ্জল সোহেল। স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রথম আলোর জেলা প্রতিনিধি হাফিজুর রহমান নিয়ন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ তালুকদার ইকবাল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিনহাজুল ইসলাম, ইউপি চেয়ারম্যান তাজ উদ্দিন, ইউপি চেয়ারম্যান হোসাইন আদিল মো. জজ মিয়া, জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল্লাহ সরদার, শায়েস্তাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ অজয় চন্দ্র দেব, শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি আ স ম আফজল আলী ও সাধারণ সম্পাদক মঈনুল হাসান রতন।

এর আগে ২২ অক্টোবর নদীর চিকিৎসার জন্য অনির্বাণ লাইব্রেরীর পক্ষে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা তুলে দেন অনির্বাণ লাইব্রেরীর প্রধান উপদেষ্ঠা নৌপরিবহণ মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব অশোক মাধব রায়।

উল্লেখ্য, ১৫ মে শায়েস্তাগঞ্জের তালুকহড়াই গ্রামে মর্জিনা খাতুনের নির্মাণাধীন বাসা ছাদে ফেলে রাখা বিদ্যুতের লাইনে পৃষ্ট হয় নদী। তাৎক্ষণিক তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সিলেটে কয়েকদিন চিকিৎসা চলার পর তার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হয়। সেখানকার চিকিৎসক আরও উন্নত চিকিৎসার জন্য ২৭ মে নদীকে ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ণ ও প্লাষ্টিক সার্জারী ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। ৪ জুন বাধ্য হয়ে দুটি পা হাটু পর্যন্ত কেটে ফেলা হয় নদীর। এরপর থেকে চিকিৎসার খরচ জোগাতে গিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন নদীর বাবা রফিক মিয়া।