নিরবতা কাটেনি ট্রাম্পের

হেলাল উদ্দীন রানা :: যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জোসেফ বাইডেন বলেছেন দায়িত্বভার গ্রহণের পর তাঁর প্রশাসন কোভিড -১৯ মোকাবিলা,সকলের জন্য স্বাস্থ্য সেবা,অর্থনীতি ইমিগ্রেশন সহ ইত্যাদি জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে কাজ শুরু করবে। মঙ্গলবার রাতে এনবিসি নিউজের বিখ্যাত সাংবাদিক ল্যাস্টার হোল্ডকে দেয়া এক এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে জো বাইডেন এ কথা বলেন। ল্যস্টার হোল্ড বাইডেনের ট্র্যানজিশন হেড কোয়ার্টার ওইলমিংটন ডেওয়ারে এই বিশেষ সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন। এনবিসি তাদের নাইটলি নিউজ নামের অনুষ্ঠানে প্রাইম টাইমে তা প্রচার করে।
ল্যাস্টার বাইডেনকে প্রথম ১শ দিনে তাঁর প্রশাসনের কাজ কী হবে জানতে চাইলে বাইডেন তা বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, কাজ করতে হলে প্রেসিডেন্টের কংগ্রেস ও সিনেটের সাহায্য প্রয়োজন। তিনি ‘ডাকা কর্মসূচি’র অধীনে থাকা আমেরিকায় জন্মগ্রহণকারী কাগজপত্রহীন ১ কোটি ১০ লাখের বেশি অভিবাসীকে বৈধতা দেয়ার ক্ষেত্রে একটি প্রস্তাব পাশ করার জন্য আইন পরিষদে পাঠাবেন। তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সকল অনৈতিক নির্বাহী আদেশ বতিল করবেন। এরমধ্যে রয়েছে ৭টি মুসলিম দেশের উপর ট্রাম্পের দেয়া ট্র্যাভেল ব্যান্ড আদেশও। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বকে নেতৃত্ব দিতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত। আমরা আবার সগৌরবে নিজ স্থানে বিশ্ব পরিমন্ডলে ফিরে যাবো। বাইডেন বলেন তিনি ইতিমধ্যে ২০টির ও বেশি দেশের নেতাদের সাথে ফোনে কথা বলেছেন। সকলেই দারুণ আগ্রহ নিয়ে আগামীর অপেক্ষা করছেন। আমেরিকা আবার তা হারানো হৃদগৌরব পুনরুদ্ধার করবে।
কোনো কোনো ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে প্রসিকিউট করার দাবি তুলছেন এমন প্রশ্ন করে ল্যাস্টার হোল্ড এব্যাপারে বাইডেনের নীতি কি হবে জানতে চান। বাইডেন এবিষয়টি অনেকটা এড়িয়ে গিয়ে বলেন, এখন এর চাইতে বহু জরুরি কাজ করার সময়। তবে তিনি বলেন এ সম্পর্কিত রাজ্যের বিষয় নিয়ে তিনি কিছু বলতে পারবেন না।
তাঁর প্রশাসন ওবামার তৃতীয় টার্ম হবে কিনা এমন প্রশ্নে বাইডেন বলেন, এখন আর তখন এক নয়। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের অনেক কিছু বদলে ফেলেছেন। আমাদের সামনে এখন অনেক কাজ। ট্রাম্প আমেরিকাকে অনেকটা একলা চলার নীতিতে নিয়ে এসেছেন। আমাদের মিত্ররা এখন দ্বিধাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। তিনি কি রাষ্ট্রীয় সিক্রেট ইন্টিলিজেন্স ব্রিফিং পাচ্ছেন এমন প্রশ্নেন বাইডেন বলেন এখনও পাননি। তবে আজ থেকে এই ব্রিফিং তাকে দেয়া হতে পারে।
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সাথে তা কোনো ধরণের যোগাযোগ হয়েছে কিনা জানতে চাইলে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, তাঁর চিফ অব স্টাফের সাথে হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফের কথা হয়েছে। তবে তাঁর সাথে এখনও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কোন ধরনের যোগাযোগ হয়নি। তাঁর ক্যাবিনেটে কোনো রিপাবলিকান প্রতিনিধি রাখবেন কিনা এমন এক প্রশ্নে বাইডেন জানান সময় শেষ হয়ে যায়নি। অদুর ভবিষ্যতে এমনটা হতেও পারে। তিনি বলেন জাতির এই বিভক্তিকে আামাদের কমিয়ে আনতে হবে। আর কোনো বিভাজন নয় এখন ঐক্যবদ্ধ হওয়ার সময়।
মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প খুবই সামান্য সময়ের জন্য হোয়াইট হাউসের প্রেস ব্রিফিং রুমে আসেন। শেয়ার বাজারের চাঙ্গা হওয়ার খবরে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে দ্রুত স্থান ত্যাগ করেন। সাংবাদিকরা পেছন থেকে শোরগোল করলেও তিনি ফিরে তাকাননি। এসময় তার সাথে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স উপস্থিত ছিলেন। তবে এতকিছুর পরও পরাজয় প্রশ্নে নিরবতা কাটে না ট্রাম্পের।