শ্রীমঙ্গল পৌরসভা বর্ধিতকরণ ও নির্বাচনের দাবি

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি :: সীমানা জটিলতা দ্রুত নিরসন করে অবিলম্বে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার বর্ধিত এলাকার প্রকাশিত সরকারি গেজেট বাস্তবায়ন ও পৌর নির্বাচনের তফশীল ঘোষণার দাবিতে রাজনৈতিক অঙ্গন হঠাৎ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। শনিবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চৌমুহনা চত্ত্বরে ‘শ্রীমঙ্গল পৌরসভা বর্ধিতকরণ ও নির্বাচন বাস্তবায়ন পরিষদ’ এর উদ্যোগে বিশাল মানববন্ধন ও অবস্থান কর্মস‚চী পালিত হয়। এ কর্মস‚চীতে বর্ধিত এলাকার জনগণসহ ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, স্থানীয় আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতা ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীসহ পৌরসভার শত শত নাগরিক যোগ দেন। কর্মস‚চী পালনকালে ঢাকা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কে কয়েক কিলোমিটার সড়ক জুড়ে যানবাহন আটকে যায়। ফলে এ সময় যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হন।
‘শ্রীমঙ্গল পৌরসভা বর্ধিতকরন ও নির্বাচন বাস্তবায়ন পরিষদ’ এর আহবায়ক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা মো. আছকির মিয়ার সভাপতিত্বে ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা তফাজ্জল হোসেন ফয়েজের পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ সৈয়দ মনসুরুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মো. ইউছুফ আলী, আবু সহিদ আব্দুল্লাহ, ডা. হরিপদ রায়, এনাম হোসেন চৌধুরী মামুন, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সরফরাজ আলী বাবুল, সদর ইউপি চেয়ারম্যান ভানু লাল রায়, আশ্রিদ্রোণ ইউপি চেয়ারম্যান রনেন্দ্র প্রসাদ বর্ধন জহর, উপজেলা জাসদের সভাপতি এলেমান কবীর, ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি এএসএম ইয়াহিয়া, সাবেক সাধারন সম্পাদক কদর আলী, ব্যবসায়ি নেতা দেবাশীষ ধর পার্থ ও জেলা পরিষদের সদস্য বদরুজ্জামান সেলিম।
বক্তারা বলেন, সর্বশেষ ২০১১ সালের ১৮ জানুয়ারি পৌরসভার নির্বাচন হয়েছিল। এরপর আর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। কিন্তু সীমানা জটিলতার অজুহাত দেখিয়ে পৌরসভার নির্বাচন না হওয়ার একই পরিষদ অনির্বাচিত পন্থায় ক্ষমতায় আছে। নির্বাচনের আগ পর্যন্ত প্রসাশক নিয়োগ করে বর্ধিত এলাকা নিয়ে নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে। দীর্ঘ দিন থেকে বর্ধিত এলাকার নাগরিকরা পৌরসভাকে কর প্রদান করলেও তারা পৌরসভার বিভিন্ন নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন এমন অভিযোগ তুলে ধরে বক্তারা বলেন, নির্বাচন দ্রæত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন হলে পর্যটন নগরী শ্রীমঙ্গলের উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে। তাই দ্রæত সময়ের মধ্যে বর্ধিত এলাকা নিয়ে নির্বাচন আয়োজন করতে হবে।
উল্লেখ্য, দেশের অন্যতম পর্যটন এলাকা শ্রীমঙ্গল পৌরসভা ১৯৩৫ সালে ২ দশমিক ৫৮ বর্গ কিলোমিটার আয়তন নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয়। সর্বশেষ পৌরসভাটি ২০০২ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি ‘খ’ শ্রেণি থেকে ‘ক’ শ্রেণিতে উন্নীত হয়। ১৯৮১ সালে বর্ধিত এলাকা নিয়ে নির্বাচনের গ্যাজেট প্রকাশিত হলেও দীর্ঘ ৩৯ বছরেও তা বাস্তবায়ন হয়নি।