সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত

কানাইঘাট প্রতিনিধি :: সিলেট জেলার কানাইঘাট দিঘীরপার ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিনকে পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়েছে।
বুধবার বিকেল ৫টার দিকে বার্ধক্যজনিত কারণে বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউনিয়নের বড়খেওড় গ্রামের নিজ বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। তিনি ২ স্ত্রী, ৬ ছেলে ও ৭ মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় স্থানীয় সুরতুন নেওয়া মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এতে এলাকার সর্বস্তরের লোকজন শরীক হন। জানাজার নামাজের আগে মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিনের প্রতি রাষ্ট্রীয় সম্মান প্রদর্শন করা হয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুমন্ত ব্যানার্জির নেতৃত্বে। পরে তার মরদেহ বড়খেওড় জামে মসজিদ গোরস্থানে সমাহিত করা হয়।
জানাজার নামাজের আগে গিয়াস উদ্দিনের স্মৃতিচারণ করে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মুমিন চৌধুরী, লক্ষীপ্রসাদ পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান ডা. ফয়েজ আহমদসহ তার কয়েকজন সহকর্মী বীর মুক্তিযোদ্ধা।
স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন অত্যন্ত সুনামের সাথে নির্বাচিত হয়ে দিঘীরপাড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। এলাকায় একজন সমাজসেবী ব্যক্তি হিসাবে সর্বমহলে তিনি অত্যন্ত শ্রদ্ধাভাজন ছিলেন। গিয়াস উদ্দিন এক সময় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেন। তার গ্রামের বাড়ি ছিল দর্পনগর পূর্ব গ্রামে। পরে তিনি বড়খেওড় গ্রামে বাড়ি করে সেখানে বসবাস করে আসছিলেন।
এদিকে, বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিনের মৃত্যুতে শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা এবং মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে শোক প্রকাশ করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম, দিঘীরপার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলী হোসেন কাজল, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সমছু চৌধুরী, নাজমুল হক, কানাইঘাট প্রেসক্লাবের সভাপতি রোটারিয়ান শাহজাহান সেলিম বুলবুল ও সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিনসহ নেতৃবৃন্দ।