ক্ষমতা ছাড়তে রাজি নন ট্রাম্প

হেলাল উদ্দীন রানা :: যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাচন পরবর্তী ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়া নিয়ে জটিলতা এখনও কাটেনি। ‘নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট’ জোসেফ বাইডেনের ট্র্যানজিশন টিমকে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বা তার প্রশাসন কোনো সহযোগিতাই করছেন না। গত ৩ নভেম্বরের পর থেকে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সামান্য ব্যতিক্রম ছাড়া জন সমক্ষে আসছেন না। নিচ্ছেন না সাংবাদিকদের কোনো প্রশ্ন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যেনো ‘কানে দিয়েছেন তুলো আর পিঠে বেঁধেছেন কুলো’। ফলে নির্বাচনের ২ সপ্তাহের বেশি সময় অতিবাহিত হলেও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের একগুয়েমির কারণে সব যেনো স্থবির হয়ে পড়েছে।
‘নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট’ জো বাইডেন বলেছেন ট্রাম্পের এবং তার প্রশাসনের এমন দায়িত্বজ্ঞানহীন কর্মকাণ্ড তার নতুন প্রশাসনের কাজকর্ম মাস পিছিয়ে দিতে পারে। এতে করে করোনার অতিমারিতে বিপর্যস্ত আমেরিকায় মানুষের মৃত্যু আরো বহু গুণে বেড়ে যাবে।
প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নির্বাচনের পর থেকে ব্যাটেলগ্রাউন্ড বিবেচিত বিভিন্ন রাজ্যে দায়ের করা মোট ২১টি মামলার মধ্যে এ পর্যন্ত একটিতেও জয়লাভ করতে পারেননি। এ নিয়ে বিক্ষুব্ধ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শেষ পর্যন্ত তার সবগুলো মামলা সপে দিয়েছেন তার বিশ্বস্ত মিত্র বলে পরিচিত এক সময়ের ফেডারেল প্রসিকিউটর ও নিউইয়র্ক সিটির সাবেক মেয়র রুডি জুলিয়ানির হাতে। কিন্তু এতেও তাকে হতাশ হতে হচ্ছে। কার্যত জুলিয়ানির হাত ধরেও কোনো আশানুরূপ ফল আসেনি এখনও। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ষড়যন্ত্রতত্ত্ব প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে জুলিয়ানির সফলতা নিয়ে মার্কিন মিডিয়া সন্দেহ প্রকাশ করছে। এমনকি রুডি জুলিয়ানিকে নিয়ে নানা হাস্যকৌতুকের সৃষ্টি হয়েছে মিডিয়ায়।
বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটনে জুলিয়ানি এসব মামলার বিষয় নিয়ে এক দীর্ঘ প্রেস কনফারেন্সে হাজির হন। সিএনএন ও এমএসএনবিসি তার প্রেস কনফারেন্স প্রচার করেনি। সিএনএন তাদের ব্যাখায় এই কনফারেন্সকে ভাঁওতাবাজি ও গসিপ বলে উল্লেখ করে। তবে কনফারেন্স চলাকালীন রুডি জুলিয়ানি যে গলদঘর্ম হয়ে পড়েন তা প্রচার করে সব মিডিয়া। এতে দেখা যায় ঘেমে নেয়ে উঠছেন যেনো তিনি। তার মাথার ঘামের সাথে চুলের কলপ গলে দুই গাল বেয়ে ঝরে পড়েছে।
জর্জিয়ায় হাতে ভোট পুনগণনা শেষ হয়েছে। ভোটের ফলাফল তেসন কোনো হেরফের হয়নি। বাইডেন এগিয়ে আছেন যথারীতি। অন্যদিকে, ৩ মিলিয়ন ডলার খরচা পড়ছে ট্রাম্প ক্যাম্পেইনের উইসকনসিনের মাত্র দুটি কাউন্টির ভোট পুনগণনা করতে। তারা কোর্টে ভোট পুনগণনার আবেদন জানালে আদালত সম্পূর্ণ রাজ্যের ভোট পুনগণনা মঞ্জুর করে আগে এ জন্য ৮ মিলিয়ন ডলার জমা করার আদেশ দেয়। শেষপর্যন্ত ট্রাম্প ক্যাম্পেইন মাত্র ৩ মিলিয়ন ডলার জমা করে ডেমোক্র্যাটদের ভোট ব্যাংক অথাৎ ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন যে কাউন্টিগুলোতে বেশি ভোট পেয়েছেন এমন দুটি কাউন্টির ভোট পুনগণনার আবেদন জানায়। বর্তমানে উইসকনসিনের মিলাউকি ও ডায়েন কাউন্টির ভোট পুনগণনা চলছে। কিন্তু জর্জিয়ার মতোই ফলাফলের খুব একটা পরিবর্তন হবে না।
নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ক্ষমতা গ্রহণের প্রস্তুতির কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন তার ট্র্যানজিশন টিমকে নিয়ে। তিনি ও তার ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত কমলা হ্যারিস প্রতিদিন ভার্চুয়ালি সভা করছেন কোভিড-১৯ সহ জরুরি নানা ইস্যুতে গুরত্বপূর্ণ ব্যাক্তিদের সাথে। বৃহস্পতিবার তিনি ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান দুই দলের সমন্বয়ে গঠিত গভর্নর এসোসিয়েশনের কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেছেন।