‘সাহস থাকলে সৌদি আরব পরমাণু বোমার ঘোষণা দিক’

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক :: সাহস থাকলে সৌদি আরব পরমাণু বোমার ঘোষণা দিচ্ছে না কেন এমন প্রশ্ন তুলেছে ইরান। ভিয়েনায় জাতিসংঘের দফতরে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি কাজেম গরিবাবাদি বলেন, তাদের সাহস থাকলে তারা পরমাণু বোমার ঘোষণা দিক।
সৌদি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আদেল আল-জুবায়েরের সাম্প্রতিক ইরানবিরোধী বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, ‘সৌদি আরব যদি পরমাণু বোমা বানানোর পরিকল্পনা করে থাকে কিংবা নিজের গোপন পরমাণু কর্মসূচির ব্যাপারে আইএইএ’কে সহযোগিতা না করার জন্য অজুহাত খুঁজতে থাকে তাহলে তাকে সাহস দেখাতে হবে এবং এর জন্য মূল্য পরিশোধ করতে হবে। ’
এই বক্তব্যের জবাব দিতে গিয়ে ভিয়েনায় জাতিসংঘের দফতরে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি কাজেম গরিবাবাদি এরকম কড়া মন্তব্য করেন।
তিনি বলেন, সৌদি আরবের পরমাণু বোমা বানানোর অভিপ্রায় থাকলে প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়ে এ কাজ শুরু করুক।
ইরানের এই অভিজ্ঞ কূটনীতিক মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেজে দেওয়া এক পোস্টে আরও বলেন, নিজের অপরাধ থেকে অন্যের দৃষ্টিকে দূরে সরিয়ে রাখা এবং ভীতি ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে বিশ্বজনমতকে ধোঁকা দেওয়ার ক্ষেত্রে প্রতারকদের দু’টি গুরুত্বপূর্ণ কৌশল। গরিবাবাদি আল-জুবায়েরকে উদ্দেশ্য করে আরও বলেন, নিজের অপরাধী কার্যকলাপের দায় অন্যের ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা করবেন না।
সৌদি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে বলেন, যদি ইরানের পরমাণু কর্মসূচি বন্ধ করা না হয় তাহলে নিজেকে পরমাণু বোমায় সজ্জিত করার অধিকার সৌদি আরব সংরক্ষণ করবে।
ইসরায়েল ও আমেরিকার পদাঙ্ক অনুসরণ করে সৌদি কর্মকর্তারা সাম্প্রতিক সময়ে ইরানের বেসামরিক পরমাণু কর্মসূচিকে মধ্যপ্রাচ্যের নিরাপত্তার জন্য হুমকি হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা করছেন। রিয়াদ এমন সময় এ উদ্যোগ নিয়েছে, যখন আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা বা আইএইএ এখন পর্যন্ত তার সবগুলো প্রতিবেদনে ইরানের পরমাণু কর্মসূচিকে শান্তিপূর্ণ বলে স্বীকার করেছে।