আজমিরীগঞ্জে থামছে না বাল্যবিয়ে


আজমিরীগঞ্জ প্রতিনিধি :: হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জে উপজেলা প্রশাসনের নিয়মিত অভিযানেও থামছে না বাল্যবিয়ে। প্রশাসনের নজরদারী এবং অভিযানের পরও প্রায়ই লুকিয়ে চলছে বাল্যবিয়ে। বাল্যবিয়ে বন্ধে জনসচেতনতা এবং জনসচেতনতামূলক প্রচার আরো বাড়ানো দরকার বলে মনে করছেন এলাকার সচেতন নাগরিক সমাজ।
শুক্রবার সদর বিরাট ইউনিয়নের জনৈক ব্যক্তির মেয়ের সাথে বানিয়াচং উপজেলার লেচু মিয়ার অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলের বিয়ের দিন ধার্য করে উভয় পরিবার। যথারীতি শুক্রবার দুপুরে বরযাত্রীও যান কনের পিত্রালয়ে। কিন্তু গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিকাল ৩টায় বিয়েবাড়িতে হাজির হন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মতিউর রহমান খাঁন।
এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে বিয়ের অনুষ্ঠানে ভেঙে দেওয়া হয়। সেই সাথে এ অনুষ্ঠান আয়োজন করায় ছেলের বাবা লেচু মিয়াকে (৪৫) বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন ২০১৭ অনুসারে মোট ৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয় এবং ভবিষ্যতে তারা বাল্যবিবাহ সংঘটনে জড়িত থাকবেন না মর্মে মুচলেকা প্রদান করা হয়।
এ অভিযানে এস আই কামরুলের নেতৃত্বে আজমিরীগঞ্জ থানা পুলিশের একটি দল সার্বিক সহযোগিতা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করেন। উল্লেখ্য, ১২ নভেম্বর জলসুখা ইউনিয়নে একটি বাল্য বিয়ে পন্ড করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মতিউর রহমান খাঁন। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মতিউর রহমান খাঁন বলেন, বাল্যবিয়ে রোধে প্রশাসনের এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।