জর্ডানে সংসদ নির্বাচন

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক :: জর্ডানে নতুন সংসদ গঠনের উদ্দেশ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মঙ্গলবার সংসদের নিম্ন কক্ষের ১৩০ জন সদস্য নির্বাচনের লক্ষ্যে ভোট দিয়েছেন জর্ডানিরা। এরপর অনুষ্ঠিত হবে ‍উচ্চকক্ষ নির্বাচন। পশ্চিমা মিত্র হিসেবে পরিচিত দেশটিতে করোনা মহামারির মধ্যেই অনুষ্ঠিত হচ্ছে এ নির্বাচন।
সংসদে ১৫টি আসন নারীদের জন্য সংরক্ষিত। আগের সংসদ ভেঙে দেয়া হয়েছিল সেপ্টেম্বর মাসে। চারমাসের মধ্যে নতুন সংসদ গঠনের বাধ্যবাধকতায় নভেম্বরে এই নির্বাচন হচ্ছে। খবর আল জাজিরার।
মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে জর্ডানেই সরকার পদ্ধতি অনেকটা প্রতিনিধিত্বশীল বলে মনে করা হয়। তবে বেশিরভাগ নির্বাহী ক্ষমতা রয়েছে বাদশাহ দ্বিতীয় আবদুল্লাহর হাতে। তিনি সরকার গঠনে আমন্ত্রণ জানাতে পারেন। আবার ইচ্ছে হলে যে কোনো সময়েই সংসদ ভেঙে দিতে পারেন।
মুসলিম ব্রাদারহুডের সঙ্গে জড়িত একটি দলসহ জর্ডানের রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। জর্ডানের উপজাতীয় প্রার্থী, ব্যবসায়ী ও বাদশাহর প্রতি অনুগত লোকেরাই কেবল এতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন।
জর্ডানের স্বাধীন নির্বাচন কমিশন বলেছে, ভোট দেয়ার সময় ভোটারদের সামাজিক দূরত্ব বিধি কঠোর ভাবে মেনে চলার বিষয়টা নিশ্চিত করা হয়েছে। ভোটাররা যাতে এক জায়গায় দাঁড়িয়ে বিশৃঙ্খল সৃষ্টি করতে না পারে, সে দিকেও নজর রাখার বিষয়টা মনে রাখা হয়েছে। সবাইকে ভোট দেয়ার জন্য একটা করে কলম ও একজোড়া গ্লাভস্ দেয়া হয়েছে। প্রত্যেক ভোটারের আইডি স্ক্যান করা হয়েছে। ভোটারদের অমোচনীয় কালিতে আঙুল ডোবাতে হবে না।
জর্ডানে মহামারির শুরু থেকেই সরকার সচেতনভাবে কাজ করতে শুরু করে। প্রথম থেকেই দেশটিতে লকডাউন ও কারফিউ জারি করা হয়। বুধবারের শুরু থেকে পরবর্তী চারদিন ২৪ ঘণ্টা কারফিউ জারি রাখার কথা বলা হয়েছে।