২৫ ঘন্টা পর সিলেটের সঙ্গে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে সাতগাঁও রেলস্টেশনের কাছে তেলবাহী ট্রেন লাইনচ্যুতির কারণে প্রায় ২৫ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর সিলেট-ঢাকা এবং সিলেট-চট্টগ্রাম রুটে আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল পুণ:রায় চালু হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ ৪টি বগি, একটি গার্ড ব্যারাক ও একটি ব্যাংকিং ইঞ্জিন লাইনচ্যুতর ঘটনায় ভেঙে যাওয়া প্রায় ১৩০০ ফুট ক্ষতিগ্রস্ত রেললাইন মেরামতের কাজ দুপুর ১২টারদিকে পুরোপুরি সম্পন্ন করা হয়েছে।
সাতগাঁও রেলস্টেশনের স্টেশনমাস্টার (গ্রেড-১) মো. আব্দুর রহিম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আখাউড়া থেকে বগি শনিবার বিকেলে মেরামতকারী ইঞ্জিন এসে লাইনের ওপর ছিটকে পড়া ট্যাংকারগুলো সরিয়ে ট্রেনলাইন মেরামতের পর আজ রবিবার দুপুর ১২টায় পুন:রায় ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। সকালে সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী আন্ত:নগর পাহাড়িকা ট্রেন শ্রীমঙ্গল রেলস্টেশন থেকে ছেড়ে যাচ্ছে।
এর আগে শনিবার সকাল ১১টা ২৫ মিনিটের দিকে সাতগাঁও রেলস্টেশনের আউটার সিগন্যালে তেলবাহী ট্রেন ৪টি ওয়গনসহ ৬টি বগী লাইনচ্যুত হয়। এতে সারা দেশের সঙ্গে সিলেটের রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।
স্টেশন মাস্টার জানান, দুর্ঘটনাকবলিত ট্রেনটি চট্টগ্রাম থেকে কেরোসিন ও ডিজেল নিয়ে সিলেট যাচ্ছিল।
রেলওয়ের সিনিয়র সাব এসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার দুলাল চন্দ্র দাশ জানান, দুর্ঘটনার পর কুলাউড়া ও আখাউড়া থেকে বগি মেরামতকারী ইঞ্জিন এসে লাইনের ওপর ছিটকে পড়া ওয়াগানগুলো সরিয়ে ট্রেনলাইন মেরামতের পর দুপুর ১২টার পর থেকে ট্রেন চালু করা হয়েছে। সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী পাহাড়িকা এক্সপ্রেস ট্রেন ছেড়ে গেছে। তবে ক্ষতিগ্রস্থ রেললাইনের কাজ সম্পন্ন করতে আরও এক সপ্তাহ লাগবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।
এদিকে, দুর্ঘটনার দ্বিতীয় দিনেও রোববার সকালেও এলাকাবাসী ভিড় করে তেল সংগ্রহ করেন। স্থানীয় লোকজনকে প্রথম দিনের মতোই তেল সংগ্রহ করতে দেখা গেছে। এরইমধ্যে দুর্ঘটনার কারণে ট্যাঙ্ক লিকেজ হয়ে একলাখ ৬০ হাজার লিটারের মতো তেল পড়ে গেছে। শনিবার সন্ধ্যায় ট্যাঙ্ক লিকেজ হওয়ায় তেল সংগ্রহকে কেন্দ্র করে জিআরপি পুলিশের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষে এক পুলিশ সদস্যসহ ৫ জন আহত হন।
দুর্ঘটনার প্রায় ৭ ঘণ্টা পর রিলিফ ট্রেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজ শুরু করে। শনিবার রাতে ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে ৭ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান,শনিবার সকাল ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসে সিলেটগামী তেলবাহী ট্রেনটি। শ্রীমঙ্গলের সাতগাঁও রেলস্টেশন এলাকার ১৪৪ নম্বর ব্রিজের পৌঁছালে ট্রেনটি প্রচ- বেগে ঝাঁকি দেয়। এরপর ইঞ্জিনসহ একে একে ছয়টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে উল্টে যায়। দুমড়ে মুচড়ে যায় রেল লাইনের প্রায় আধা কিলোমিটার স্লিপার। এতে বন্ধ হয়ে যায় সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ।
দুর্ঘটনার কারণে ট্যাঙ্ক লিকেজ হয়ে একলাখ ৬০ হাজার লিটারের মতো পেট্রোল, কেরোসিন ও ডিজেল মাটিতে পড়ে যায়। এর আগেও শ্রীমঙ্গলের সাতগাঁও রেলস্টেশন এলাকায় একাধিকবার ট্রেন দুর্ঘটনা হলেও লাইন সংস্কারে নেয়া হয়নি তেমন কোনো উদ্যোগ।