প্রতারক সাহেদের বিরুদ্ধে এবার সিলেটে ওয়ারেন্ট

সাহেদ। ফাইল ছবি।

একাত্তর ডেস্ক :: রিজেন্ট গ্রুপ ও হাসপাতাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ করিম সাহেদ’র বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগে এক পাথর ব্যবসায়ীর দায়েরকৃত মামলায় সিলেটের আদালতও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন। রোববার সিলেট মুখ্য মহানগর হাকিম (১ম) আদালতের বিচারক হারুনুর রশিদ এ রায় দেন।

জৈন্তাপুর উপজেলার পাথর ব্যবসায়ী, ‘মাওলা স্টোন ক্রাশার মিল’র স্বত্বাধিকারী শামসুল মাওলার দায়ের করা প্রতারণা মামলায় সাহেদের বিরুদ্ধে এ রায় প্রদান করা হয়েছে।

গত ৪ মার্চ ২০২০ তারিখে সিলেট চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (১ম) আদালতে সাহেদের বিরুদ্ধে ২৫ লাখ টাকার তিনটি প্রতারণা মামলা দায়ের করেন মাওলা। সাহেদের দেয়া ১০ লক্ষ টাকা করে ২ টি চেকে ২০ লক্ষ টাকা ও আরও একটি চেকে ৫০ হাজার টাকা নির্ধারিত সময়ে না পাওয়ায় এ তিনটি মামলা করেন তিনি।

করোনা পরিস্থিতির কারণে বিলম্বের পর আজ রোববার আলোচিত সেই মামলার শুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুনানিকালে বিবাদিপক্ষের আইনজীবি সাহেদের জামিনের আবেদন করলে সিলেট চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (১ম) আদালতের বিচারক হারুনুর রশিদ সেটি নাকচ করে সাহেদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

গণমাধ্যমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের এপিপি ও বাদিপক্ষের আইনজীবী মো. আবদুস সাত্তার।

করোনা টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট প্রদান, অর্থ আত্মসাতসহ প্রতারণার গুরুতর অভিযোগ উঠার পর গত ১৫ জুলাই সাতক্ষীরার দেবহাটা সীমান্ত এলাকা থেকে রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম ওরফে মো. সাহেদকে গ্রেফতার করে র‍্যাব।

পরে গত ৪ মার্চ সিলেট চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (১ম) আদালতে সাহেদের বিরুদ্ধে ২৫ লাখ টাকার তিনটি পৃথক প্রতারণা মামলা দায়ের করেন শামসুল মাওলা।