ছাতকে নৌপথে চাঁদাবাজি চাঁদাবাজরা বেপরোয়া

ছাতক প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জের ছাতকে সুরমা নদীতে চলন্ত নৌযানে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় কিছুদিন বন্ধ থাকলেও ক’দিন ধরে আবারও চাঁদাবাজরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে। ফলে পাথর ব্যবসায়ী ও নৌযান শ্রমিকরা রয়েছেন আতংকে ও উৎকন্ঠায়।
চাঁদাবাজচক্রটি চাঁদা আদায় ছাড়াও নানা সময় শ্রমিকদের মারধর করে লুটপাট করে নৌকায় থাকা মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যায়। তীরে ভেড়ানো নৌকা ও নদীতে থাকা নৌকা হতে নানা সময় চুরি ডাকাতি হয়। নদীতে নৌ পুলিশের সামনেই চলছে এসব চুরি ডাকাতির ঘটনা। পাথর ব্যবসায়ী ও নৌ শ্রমিকদের ধারনা, এসব চাঁদাবাজী পুলিশ প্রশাসনের যোগসাজসেই হচ্ছে। পুলিশ আসল চাঁদাবাজদের ধরাছোয়ার বাহিরে রেখে শুধু লোক দেখানোর জন্য ২/৪ জন নৌ শ্রমিকদের গ্রেপ্তার করে।
একটি সূত্রে জানা যায়, চরেরবন্দ মহল্লার আকিল আলীর ছেলে মোহন একই মহল্লার জাকির, কেম্পানীগঞ্জ উপজেলার তেলিখাল গ্রামের সামছুল হকসহ সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজ চক্র নদীতে চাঁদাবাজী করছে। তবে পুলিশ এদের গ্রেপ্তার করছেনা। চাঁদাবাজরা বাংলাদেশ নদীবন্দর এসোসিয়েশন ঢাকা বাংলাদেশ, খনিজ সম্পদ আমদানী রপ্তানী, চলতি নদীর ইঞ্জিন চালিত আহরিত নৌকা/বলগেট/জাহাজ হতে টোল আদায়ের ভূয়া অবৈধ রশিদ দিয়ে প্রতি নৌকা হতে প্রায় ৩/৪ হাজার টাকা করে আদায় করে থাকে। রোববার ও নদীতে চাঁদাবাজাদের ছোট নৌকা নিয়ে চাঁদাবাজী করতে দেখা যায়।
এ ব্যাপারে ছাতক থানার ওসি শেখ নাজিম উদ্দিন বলেন, নদীপথে চাঁদাবাজী বন্ধ রয়েছে। আমাদের পুলিশের লোকজন টহলে রয়েছে। বিষয়টি দেখছি।