এক ভবনে ইহুদি, মুসলিম ও খ্রিস্টানরা ইবাদত করবে

?? ???? ????? ???? ?????, ?????? ? ?????????

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক :: বিশ্বব্যাপী ভিন্ন ধর্ম ও মতাদর্শের মানুষের মাঝে বিভক্তি যখন চরম পর্যায় চলে যাচ্ছে তখনই অনন্য নজির স্থাপন করতে যাচ্ছে জার্মানির বার্লিন শহর। সেখানে ইহুদি, খ্রিস্টান ও ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের জন্য একটি উপাসনালয় নির্মিত হচ্ছে। সেখানে তিন ধর্মের মানুষই ইবাদত করতে পারবেন। ভবনটির নাম দেয়া হয়েছে ‘হাউজ অব ওয়ান’। ২০২১ সালেই এর নির্মাণ কাজ শেষ হবে।
ইহুদি, খ্রিস্টান ও মুসলিম এই তিন ধর্মের প্রতিনিধিরা প্রায় এক দশক ধরে এই একক উপাসনালয় নির্মাণ নিয়ে আলোচনা করছেন। শেষ পর্যন্ত তা আগামী বছর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করবে। হাউজ অব ওয়ান ফাউন্ডেশনের প্রশাসনিক পরিচালক রোলান্ড স্টোলটে জানিয়েছেন, আগামী দুই মাসের মধ্যে অর্থাৎ ২০২১ সালের জানুয়ারিতেই বার্লিনের পুরোনো শহরের ঠিক মাঝখানে এই ভবনটি নির্মাণের জন্য মাটি খোঁড়ার কাজ শুরু হবে।
ভবন নির্মাণের নির্বাচিত স্থানে ৭০০ বছর ধরে পেট্রিকির্শে নামের একটি গির্জা ছিল। সেটি ধ্বংস হওয়ার পর জায়গাটি খালিই পড়ে রয়েছে। এবার গির্জার স্থানেই তিন ধর্মের এক উপাসনালয় নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। একটি কেন্দ্রীয় বৈঠকখানার চারপাশ জুড়ে থাকবে মসজিদ, গির্জা ও সিনাগগ। ৪০ মিটার উঁচু এ ভবনটি নির্মাণে ৪৩ দশমিক পাঁচ মিলিয়ন ইউরো বা প্রায় ৪৩২ কোটি টাকা খরচ হবে।
প্রকল্পটি বেশ কয়েকটি কারণে পিছিয়ে গিয়েছিলো, সবশেষ করোনা মহামারির কারণে আবারও পেছানো হয় নির্মাণ কাজ। বার্লিনের মেয়র মিকায়েল ম্যুলার ভবনটি নির্মাণে ২০ সদস্যের ট্রাস্টি বোর্ডের প্রধান হিসেবে রয়েছেন।
তিন ধর্মের প্রতিনিধি ছাড়াও এই বোর্ডে হামবোল্ডট ফোরামের মহাপরিচালক, ইহুদি জাদুঘরের পরিচালক, জার্মান থিয়েটারের পরিচালক, প্রæশিয়ান কালচারাল হেরিটেজ ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্টও রয়েছেন। সংস্কৃতি ও ধর্মের মেলবন্ধন হিসেবে এই ভবনটি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নিবে বলে মনে করছেন তারা।