আদালতের মুখোমুখি হতে কসোভোর প্রেসিডেন্টের পদত্যাগ

ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক :: আন্তর্জাতিক আদালতে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি হতে পদত্যাগ করেছেন ইউরোপের সর্বশেষ স্বাধীন দেশ কসোভোর প্রেসিডেন্ট হাসিম থাচি। যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে নেদারল্যান্ডের শহর হেগের আদালতে বিচারের মুখোমুখি হতে তিনি তার পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন।
বৃহস্পতিবার দেশটির রাজধানী প্রিস্টিনায় এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দিলেন ৫২ বছর বয়সী এ প্রেসিডেন্ট। দেশটি সার্বিয়ার সঙ্গে লড়াই করে ২০০৮ সালে স্বাধীনতা ঘোষণা দেয়। কিন্তু সার্বিয়ার সঙ্গে বৈরীতা এখনও কমেনি। সার্বিয়ার অন্তর্ভূক্ত থাকার সময় কসোভো লিবারেশন আর্মি (কেএলএ) নামে সার্বিয়ার বিরুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধ চালায় বর্তমান কসোভো। রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের সময়ের ১৯৯৮ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত কেএলএ কমান্ডার ছিলেন হাসিম থাচি। ওই সময়ের গেরিলা যুদ্ধে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি হতে হচ্ছে সাবেক এই গেরিলা যোদ্ধাকে। তবে তার বিরুদ্ধে ওঠা এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি বলেন, কসাভোর আঞ্চলিক অখন্ড মর্যাদা রক্ষার জন্যই তিনি তার কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেছেন।
হেগের আদালতে প্রকাশিত খসড়া অভিযোগে থাচিসহ নয় জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে কমপক্ষে ১০০ জনকে হত্যার অেিভাযোগ আনা হয়েছে। এতে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষসহ আলবেনীয়, সার্বিয়, রোম জনগোষ্ঠী ও অন্যান্য নৃতাত্তি¡ক বৈশিষ্ট্রের মানুষকে হত্যার অভিযোগ করা হয়েছে। উল্লেখ্য, দেশটিকে সার্বিয়া এখনো স্বীকৃতি দেয়নি।
সূত্র : এবিসি নিউজ, আল জাজিরা, এবিসি নিউজ