কে বসছেন ওয়াশিংটনের মসনদে?

হেলাল উদ্দীন রানা
যুক্তরাষ্ট্রের ভোটের লড়াই মঙ্গলবার। রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট ডোনান্ট ট্রাম্প নাকি ডেমোক্রাট জো বাইডেন কে বসছেন হোয়াইট হাউসে? এমন জিজ্ঞাসা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহ বিশ্বের কোটি কোটি মানুষের।
লক্ষ কোটি টাকার অধিক বিশাল ব্যায় সাপেক্ষ এই নির্বাচনের বিরতিহীন প্রচার-প্রচারনা প্রায় শেষের দিকে। দুই প্রার্থী ক্লান্তিহীন চষে বেড়িয়েছেন গোটা আমেরিকা। ব্যাটাল গ্রাউন্ড রাজ্যে উড়তে উড়তে এখন প্রায় বিধ্বস্ত, পরিশ্রান্ত অবস্থা তাঁদের।
শনিবার পর্যন্ত ৯ কোটি ভোটার তাঁদের আগাম ভোট দিয়ে বসে আছেন ফলাফলের অপেক্ষায়। এবার রেকর্ড সংখ্যক ভোট কাষ্টিং হবে বলে নির্বাচন নিয়ে কাজ করা সংস্থাগুলো বলছে। বহু রাজ্যে এখনও আগাম ভোটের দীর্ঘ লাইন দৃশ্যমান। এবার যুক্তরাষ্ট্রের মোট ভোটার প্রায় ২৪ কোটির কাছাকাছি।
আসন্ন নির্বাচনের দিন কিছু রাজ্যে সহিংসতার আশংকা করছেন পর্যবেক্ষক মহল। সকল জনমত জরিপে বাইডেন ভাল ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন। কিন্তু ট্রাম্প সমর্থকরা জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তাঁরা এসব জরিপ আমলে নিচ্ছেন না। ট্রাম্প আখেরে তাঁর ক্যারিশমা ঠিকই জাহির করবেন এমন অন্ধ বিশ্বাসই তাঁদের আশাবাদের কারণ।
হোয়াইট হাউসের পথে ট্রাম্পের জন্য যে রাজ্যগুলো এবার অন্তরায় সেই ব্যাটালগ্রাউন্ড মিশিগান, পেনসেলভেনিয়া ও উইসকনসিনে তিনি প্রতিদিন হানা দিচ্ছেন। কিন্তু বাইডেন এগুলোয় ক্রমশ শক্ত আসন গাড়ছেন। জরিপে পেনসেলভেনিয়ায় ৬, মিশিগানে ৮ এবং উইসকনসিনে ১০ পয়েন্টে ট্রাম্পের চাইতে এগিয়ে বাইডেন।
সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বাইডেনের সাথে যুদ্ধক্ষেত্র বলে বিবেচিত রাজ্যগুলোয় সভা-সমাবেশ করে বেড়াচ্ছেন সমান তালে। তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সমালোচনা করার পাশাপাশি বাইডেনকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করতে এসব রাজ্যের ভোটারদের আহবান জানাচ্ছেন।
স্বাভাবিক নিয়মে নির্বাচনের দিন মাঝ রাতের দিকেই নির্বাচনের বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা হয়ে যায়। তবে নানা কারণে এবার ফলাফল কিছুটা দেরী হতে পারে।